wordpress-themes-development

ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডিভেলপমেন্ট (জাদুকরী টিপস)

 

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা ওয়ার্ডপ্রেসের কোর বিষয় (Core) ওয়ার্ডপ্রেস থিম Development সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবো। একজন ওয়েব ডিজাইনার কিংবা ডিভেলপার হিসেবে আপনাকে এসব জানতেই হবে।

 

ওয়ার্ডপ্রেস কি কেন শিখব

 

পোস্টটি পড়ছেন তার মানে আমি ধরে নিচ্ছি আপনি ওয়ার্ডপ্রেস কি? এই বিষয়ে ধারণা রাখেন। অন্তত ব্যসিক। ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে জনপ্রিয় একটি সিএমএস।

যার মাধ্যমে একজন নন-কোডার অনায়াসেই একটি ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারে। শুধুমাত্র ইচ্ছাশক্তি আর প্রচেষ্টা থাকলেই যে কেউ একজন ওয়ার্ডপ্রেস ডিভেলপার হতে পারেন।

 

WordPress থিম ডিভেলপমেন্ট

 

ওয়ার্ডপ্রেস থিম (WordPress Themes)

ওয়ার্ডপ্রেস বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি সিএমএস। এর মাধ্যমে আপনি কোন প্রকার কোডিং জ্ঞান ছাড়ায় একজন ডেভেলপার হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে পারেন।

থিম বলতে আসলে কি বোঝায়? মানে ওয়ার্ডপ্রেস থিম কি? এমন প্রশ্ন মনের মধ্যে আসাটা কিন্তু অস্বাভাবিক নয়। থিম বলতে আমরা যা বুঝি,

কোন কিছুর ইমাজিনেশন, ধারণা, বাহ্যিক অবয়ব। একটি বস্তুর বাহিরের দশা তা দেখতে কেমন হবে? কোন অংশে কি থাকবে এসব বিষয় যেহেতু আমরা ধারণা করে থাকি।

 

কিভাবে থিম ডিভেলপমেন্ট শেখা যায়?

 

এগুলোই মূলত থিমের সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয়।

ধরুন,

আপনি একটি বিল্ডিং বাড়ি বানাবেন। আপনার কপাল ভাল হলে শশুড় মশাইও কিন্তু বানিয়ে দিতে পারে! তো এর জন্য প্রথমে আপনি কি করবেন।

নিশ্চয় একজন ইঞ্জিনিয়ার ডেকে একটি নকশা তৈরী করবেন। মানে কত তলা বিশিষ্ট হবে আপনার বিল্ডিং? কয়টি রুম থাকবে তাতে।

 

ওয়ার্ডপ্রেস নাকি কোডিং

 

কোন মডেলের করে তৈরী করবেন আপনার স্বপ্নের বিল্ডিং? এসব নকশা নিশ্চয় আগে তৈরী করে নেন। এই যে আপনি একটি বিল্ডিং তৈরীর জন্য একটি নকশা দাড় করালেন এটাই মূলত আপনার বাড়ির একটি থিম বা বহ্যিক ধারণা।

ঠিক একইভাবে যখন একটি ওয়েবসাইট দাঁড় করাতে যাবেন তখন আপনাকে ধারণায় আনতে হবে আপনি কোন ধরণের ডিজাইন পছন্দ করেন।

কোন অংশে মেন্যুবার, কোন অংশে সাইডবার, ফুটারে কি রাখবেন, পোস্টগুলো কেমনভাবে শৌ-অফ করবে এসব বিষয় কিন্তু আপনি আগে থেকেই ধারণা করে নিবেন।

আর এই কাজটি করার জন্যই আপনার প্রয়োজন পড়বে থিমের। ওয়ার্ডপ্রেস থিম মূলত ওয়ার্ডপ্রেসের কোর একটি বিষয়।

মানে একটি থিম ছাড়া আপনি কখনই একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট তৈরী করতে পরবেন না। তাই আপনার ওয়েবসাইটের ধরণ অনুযায়ী আপনাকে থিম চয়েজ করতে হবে।

আপনি অনলাইন সার্চ করলে হাজারো থিম পেয়ে যাবেন। সবচেয়ে মজার বিষয় হল ওয়ার্ডপ্রেস ডিরেক্টরিতে হাজার হাজার থিম রয়েছে।ণ

এগুলো সম্পূর্ণ বিনামূলেই আপনি ওয়েবসাইটে ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে ডেভেলপারকে কোন প্রকার অর্থ পে করতে হবে না।

ওয়ার্ডপ্রেস নিজেই সম্পূর্ণ ফ্রি একটি সফটওয়্যার বা কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS)। এটি ব্যবহার করার জন্য কোন অর্থ গুনতে হয় না।

 

একটি ওয়ার্ডপ্রেস থিমের মধ্যে কোন ফাইলগুলো থাকে?

 

ওয়ার্ডপ্রেস টেমপ্লেট এর ফাইল সমূহ (WordPress Template Files List)

একটি ওয়ার্ডপ্রেস থিমের মধ্যে নিচের বিষয়গুলো/ফাইলগুলো খুঁজে পাবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস থিম

style.css (স্টাইল ফাইল)

একটি থিমের মধ্যে আপনি অবশ্যই একটি স্টাইল ফাইল দেখতে পাবেন। এটি আপনার থিমের হেডার সম্পর্কে বর্ণনা প্রদান করবে।

index.php (ইনডেক্স ফাইল)

এটি হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস থিমের মূল টেমপ্লেট। একটি থিমের অপরিহার্য উপাদান এটি। এর সাথে থিমের অন্যান্য পেজের লিংক আপ করানো থাকে।

 

WordPress theme customization Bangla

 

home.php (হোম ফাইল)

ওয়ার্ডপ্রেস থিমের আর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে হোম ফাইল মানে home.php । এটি আপনার ফ্রন্ট পেইজ নির্ধারণ করে থাকে।

এক্ষেত্রে আপনি একটি পোস্টকে হোমপেইজ হিসেবে দেখাতে পারেন।

 

page.php (পেইজ ফাইল)

একটি একক পেইজকে প্রকাশ করার জন্য এই ফাইলটি ব্যবহার করা হয়। এটি ওয়ার্ডপ্রেস থিম এর গুরুত্বপূর্ণ একটি এলিমেন্ট।

 

category.php (ক্যাটেগরি ফাইল)

একটি থিমের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হচ্ছে ক্যাটাগরি ফাইল। আমরা যখন কোন পোস্ট কিংবা প্রোডাক্ট লিস্ট করে থাকি তখন তা কেবল একটি ক্যাটেগরির মধ্যেই প্রকাশ করি।

 

ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ার

 

rtl.css (আরটিএল ফাইল)

আপনার লেখার ডিরেকশন যদি রাইট টু লেফট হয় তবে এটি অটোমেটিক্যালি যোগ হয়ে যাবে।

 

front-page.php (ফ্রন্ট পেইজ ফাইল)

একটি ওয়েবসাইটের নিশ্চয় হোমপেইজ থাকবে। হোমপেইজকে ফ্রন্ট পেইজ বলা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট পেইজকে ফ্রন্ট পেইজ হিসেবে এই ফাইলে যুক্ত করতে হয়।

 

ওয়ার্ডপ্রেস টেমপ্লেট

 

single.php (সিঙ্গল পোস্ট ফাইল)

বিভিন্ন ওয়েবসাইট ভিজিট করার সময় আপনি নিশ্চয় দেখেছেন একটি একক পোস্ট ওপেন করলে সেটি অন্য ক্যাটাগরির থেকে আলাদা দেখায়।

একটি সিঙ্গেল পোস্ট কিভাবে ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত হবে তা নির্ধারণ করার জন্য মূলত এই ফাইলটি প্রয়োজন পড়ে।

 

archive.php (আর্কাইভ ফাইল)

একটি ওয়েবসাইটের মধ্যে যাবতীয় কনটেন্টকে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় আবদ্ধ করে রাখতে হয়। এটা এ কারণে যে পরবর্তীতে কাঙ্খিত পোস্টটি যেন সহজেই খুঁজে পাওয়া যায়।

এই কাজটি করার জন্য আমরা আর্কাভই ফাইল ব্যবহার করবো। এখানে আপনি একটি পোস্ট কয়েক বছর আগে প্রকাশ করা হলেও তা সহজেই তারিখ অনুযায়ী খুঁজে বের করতে পারবেন।

 

comments.php (কমেন্ট ফাইল)

আমরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট ভিজিট করার সময় পোস্টের শেষে অনেক মন্তব্য দেখতে পাই। এগুলোকে কন্ট্রোল করার জন্য comments.php (কমেন্ট ফাইল) নামে একটি ফাইল থাকে।

 

ওয়ার্ডপ্রেস থিম কাস্টমাইজেশন

 

search.php (সার্চ ফাইল)

ওয়েবসাইটের মাঝে আমরা প্রায়শই সার্চ ফিল্টার নামে একটি অপশন দেখতে পাই। অনেকেই সার্চ আইকন দিয়ে তা ব্যবহার করে থাকে।

ওয়েবসাইটের কোন বিষয়কে সহজেই যাতে খুঁজে পাওয়া যায় তার জন্য আমরা সার্চ নামক ফাইলটি ব্যবহার করবো।

 

image.php (ইমেজ ফাইল)

একটি ওয়েবসাইটে অনেক ইমেজ থাকতে পারে। এসব ইমেজকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য মূলত ইমেজ ফাইলটি থিমের সাথে সংযুক্ত করা থাকে।

 

 

আপনার জন্য রিকমেন্ডেড পোস্ট,

সিএমএস হিসেবে ওয়ার্ডপ্রেস কতটা প্রত্যাশিত?

 

 

ওয়ার্ডপ্রেস থিম কাস্টমাইজেশন

 

404.php (অপ্রত্যাশিত ডকুমেন্ট)

অনেক সময় আমরা সার্চ বারে কিছু লিখলে কাঙ্খিত ফল খুঁজে পাই না। এই বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করে থিমের 404.php ফাইলটি।

ধরুন,

একটি ওয়েবসাইটে গিয়ে আমরা সার্চ বারে লিখলাম ‘অনলাইন আয় কিভাবে করতে হয়’ । ওয়েবসাইটের মধ্যে এই বিষয়ে কোন পোস্ট ইতোপূর্বে করা হয় নাই।

এখন, এই ফাইলটির জন্য আমরা নিম্নোক্ত বিভিন্ন বিষয় দেখতে পাব।

দুঃখিত! আপনার কাঙ্খিত ফলাফল খুঁজে পাওয়া যায় নাই। দয়া করে অন্য কিছু ট্রাই করুন।

অথবা,

আন্তরিক দুঃখিত, আমরা আপনার কাঙ্খিত ফলটি খুঁজে পাচ্ছি না। অনুগ্রহ করে অন্য কিছু চেষ্টা করুন।

এছাড়াও একটি থিমের মধ্যে টেমপ্লেট হিসেবে,

  • তারিখ প্রদর্শণের জন্য date.php
  • সিঙ্গেল এটাচমেন্টের জন্য attachment.php
  • ট্যাগের জন্য tag.php
  • লেখকের বর্ণনা প্রদানের জন্য author.php

এছাড়াও কাস্টম ফাইল এড করা যায়।

 

 

ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ার

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর কাজ কি? অনলাইন জগতে ওয়ার্ডপ্রেসের কদর দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। ওয়েবের প্রায় শতকরা ৫০ ভাগ ওয়ার্ডপ্রেসের দখলে।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন ওয়েব ডিভেলপমেন্ট (ওয়ার্ডপ্রেস ডিভেলপমেন্ট) এ ক্যারিয়ার গড়া সত্যিকার অর্থেই বিশাল সম্ভাবনাময় একটি ক্ষেত্র।

আর ওয়ার্ডপ্রেসের কোর অর্থাৎ মূল বিষয়ই হচ্ছে থিম এবং প্লাগিন। তাই একজন থিম ডিভেলপারের বিশাল চাহিদা লক্ষণীয়।

অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকে শুরু করে অফলাইন এর প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই আপনি একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের চাহিদা লক্ষ করবেন।

ওয়ার্ডপ্রেসের ব্যসিক বিষয়গুলো সম্পন্ন করার পর আপনি থিম এবং প্লাগিন ডিভেলপমেন্ট নিয়ে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস শিখে আয় পর্যাপ্ত পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারেন।

মনে রাখবেন দশটি বিষয়ে পান্ডিত্য অর্জন না করে একটি কিংবা দুটি বিষয়ের উপর জ্ঞান আহরণ করুন। আপনার জানার পরিমাণ নিঃসন্দেহে ভাল হবে।

আর যে কোন চাকুরীতে নিজেকে এডজাস্ট করে নিতে পারবেন। যারা ওয়ার্ডপ্রেসের বিষয়ে দক্ষতা রাখেন তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই থিম এবং প্লাগিন ডিভেলপমেন্ট নিয়ে ব্যস্ত।

আপনি অনলাইনে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে যেমন, ফাইবার, আপওয়ার্ক, পিপল পার আওয়ার এর দিকে লক্ষ করেন। শত শত ওয়ার্ডপ্রেস ডিভেলপার দেখতে পাবেন।

আর তাদের মান্থলি কি পরিমাণ আয় হয় দেখলেই আশা করি বুঝতে পারবেন এই সেক্টরটির ভ্যালু কতটা।

তো বন্ধুরা এই ছিল আমাদের ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট এর গাইডলাইন। একটি থিমের মাঝে কোন কোন টেমপ্লেটগুলো পাওয়া যায় তার একটা বেসিক ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি মাত্র।

আশা করি পোস্টটি ভাল লেগেছে।

কেমন লাগল কমেন্ট করে জানাবেন। থিম ডিভেলপমেন্ট নিয়ে আপনার যদি কিছু জানা থাকে শেয়ার করতে পারেন।

অসংখ্য ধন্যবাদ সেই সাথে,

আল্লাহ্ হাফেজ।

 

 

2 thoughts on “ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডিভেলপমেন্ট (জাদুকরী টিপস)”

  1. লাবিব

    অনেক দিন থেকে এ ধরোনের বিষয় খুজতেছিলাম। অবশেষে পেয়ে গেলাম। ধন্যবাদ লেখক কে এমন সুন্দর একটি পোস্ট উপহার দেয়ার জন্ন্যে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *