bkash

বিকাশ ক্যাশ ইন আউট এবং সেন্ড মানি চার্জ প্রতি হাজারে

 

যতগুলো মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেম আছে সবার চেয়ে বিকাশের গ্রাহক সংখ্যা এবং লেনদেনের পরিমাণ অনেক বেশি। আজকে আমরা প্রাত্যহিক বিকাশ ক্যাশ ইন, আউট এবং সেন্ড মানি চার্জ প্রতি হাজারে কত তা নিয়ে আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ্।

 

 

বিকাশ কি? (What is Bkash?)

বিকাশ হচ্ছে বাংলাদেশে ব্যবহৃত মোবাইল ভিত্তিক টাকা স্থানান্তর এর অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান। এটি অর্থ লেনদেনের একটি বিশ্বস্থ মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেম।

এর মাধ্যমে একজন গ্রাহক অনেক সহজেই দেশের একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে নিমিষেই টাকা আদান প্রদান করতে পারে।

বিকাশে প্রিয় এজেন্ট নাম্বার থেকে হাজারে ১৪.৯০ টাকা চার্জে ক্যাশ আউট করুন !

তবে মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেম হবার কারণে প্রাত্যহিক লেনদেনের লিমিট করা দেয়া হয়েছে।

তার মানে নির্দিষ্ট লিমিট ক্রস হলে ঐ দিন আর লেনদেন করতে পারবেন না।

বিকাশ ক্যাশ ইন আউট

 

 

বিকাশের সেবা সমূহ

সেবার বিষয়টি বিবেচনা করে বিকাশের সেবা সমূহকে ২ ভাগে বিভক্ত করা যায়।

বিকাশ ক্যাশ আউট চার্জ ফ্রি

শিওর ক্যাশ থেকে বিকাশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

১) গ্রাহক সেবা

২) কর্পোরেট সেবা

আমরা এখানে গ্রাহক সেবা নিয়ে আলোচনা করবো।

 

 

১) গ্রাহক সেবা।

  • অর্থ প্রেরণ 

বিকাশে টাকা পাঠানোর চার্জ, একজন গ্রাহকের একাউন্ট থেকে অন্য গ্রাহকের একাউন্টে টাকা স্থানান্তর সেবা।

আমরা এই কাজটি অ্যাপ এবং মোবাইলের ডায়ালপ্যাড থেকে *২৪৭# দুই প্রক্রিয়াতেই করতে পারি।

 

বিকাশ ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট চার্জ কেমন?

 

  • অর্থ প্রদান 

একটি বিকাশ একাউন্ট থেকে ব্যবহারকারী যে কোন ব্যবসায়ীকে পেমেন্ট সিস্টেম এর মাধ্যমে টাকা পে করতে পারে।

দেশে প্রায় এক লক্ষেরও অধিক আউটলেট রয়েছে যেখানে পেমেন্ট গ্রহন করা হয়।

 

  • মোবাইল রিচার্জ 

একজন গ্রাহক ইচ্ছে করলেই তার বিকাশ একাউন্ট থেকে নিজের কিংবা অন্য কারও মোবাইলে টাকা রিচার্জ করে দিতে পারেন।

 

আরো পড়তে পারেন,

API(এপিআই) কি?

 

  • নগদ জমা 

ক্যাশ আউট খরচ কমল বিকাশে

কোন এজেন্ট এর মাধ্যমে টাকা সরাসরি ওয়ালেটে জমা করতে পারেন।

 

  • নগদ উত্তোলন 

বিকাশ ক্যাশ আউট কিভাবে করে? বিকাশ একাউন্ট এ থাকা টাকা একজন গ্রাহক ইচ্ছে করলেই যে কোন এজেন্ট এর কাছ থেকে উত্তোলন করতে পারেন।

এক্ষেত্রে যখন ইচ্ছা তখনই কেউ ক্যাশ উত্তোলন করতে পারে। এটিএম কার্ড থেকেও যে কোন সময় টাকা উঠানো সম্ভব।

বিকাশ কেন এত জনপ্রিয়?

  • অর্থ যোগ করা 

এই পদ্ধতিতে একজন গ্রাহক ইচ্ছে করলেই তার ক্রেডিট কিংবা ডেবিট কার্ড থেকে টাকা বিকাশ একাউন্ট এ স্থানান্তর করতে পারবেন।

এখন মাস্টারকার্ডেও এই সুবিধা পাওয়া যায়। সুতরাং অর্থ যোগ করা বিকাশের গতিকে প্রাণবন্ত করে তুলেছে।

 

  • বিল প্রদান 

বিকাশ দিয়ে বিল প্রদান করুন সহজেই! একজন গ্রাহক তার বিকাশ একাউন্ট থেকে নির্দিষ্ট কয়েকটি বিল যেমন, পানির বিল, বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল প্রদান করতে পারেন।

 

  • রেমিট্যান্স 

এবার বিদেশ থেকে রেমিটেন্স আনুন বিকাশের মাধ্যমে অনেক সহজেই! এই সেবার আওতায় আসতে পেরে বাহিরের দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশী পাবলিক অনেক সহজেই টাকা বাংলাদেশের কোন ব্যবহারকারীর বিকাশ নাম্বারে প্রদান করতে পারেন।

রেমিট্যান্স পাঠানোর ফলে বাংলাদেশ  এর অনেক মানুষ অনেক সহজ ওয়েতে টাকা হাতে পাচ্ছে।

 

  • সঞ্চয়ের ওপর সুদ 

শতকরা বার্ষিক ৪% হারে একজন গ্রাহক তার বিকাশ একাউন্টে জমা করা অর্থের মুনাফা লাভ করে থাকে। এক্ষেত্রে অর্থও পুরোপুরি সুরক্ষিত থাকে।

 

  • টিকেট ক্রয় 

আর একটি বড় সুবিধা হচ্ছে গ্রাহকরা ঘরে অবস্থান করেই বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে ই-সেবার মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করতে পারেন।

 

  • অনুদান

প্রায় ১৩ টি দাতব্য প্রতিষ্ঠানে অর্থ পাঠানো যায়।

 

 

ক্যাশ ইন লিমিট (বিকাশ)

একজন বিকাশ গ্রাহক তার একাউন্ট এ দিনে সর্বোচ্চ ৫ বার ক্যাশ ইন করতে পারেন (এজেন্ট থেকে)। প্রতি মাসে সবোর্চ্চ ২৫ বার।

এবং প্রতি লেনদেনে সর্বনিম্ন ৫০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ৩০,০০০ টাকা ক্যাশ ইন করা সম্ভব। এক দিনে সর্বোচ্চ ৩০,০০০ হাজার টাকা এবং প্রতি মাসে সর্বোচ্চ ২,০০০০০ লক্ষ টাকা ক্যাশ ইন করা যায়।

 

 

অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং এর সাথে বিকাশের তুলনা

আমরা জানি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বর্তমান বাংলাদেশে অনেকগুলো রয়েছে। তাদের মধ্যে বিকাশ, রকেট, নগদ, ইউক্যাশ, শিওরক্যাশ, মোবিক্যাশ সবচেয়ে জনপ্রিয়।

তবে প্রশ্ন হচ্ছে এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় কোনটা?

যদি এমন প্রশ্ন মনে করে থাকেন তবে আমি বলবো অনান্য মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানিগুলোর চেয়ে বিকাশ অনেক দিক দিয়ে এগিয়ে।

বিকাশের সবচেয়ে বেশি এজেন্ট পয়েন্ট রয়েছে। যার কারণে কেউ টাকা ক্যাশ ইন বা ক্যাশ আউট করতে পারে সবচেয়ে সহজ উপায়ে।

নিরাপত্তার দিক দিয়ে বিকাশ অনেক এগিয়ে। যদিও অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং খাতগুলোও বেশি সক্রিয়। তার পরেও বিকাশের নিরাপত্তাটা আমার কাছে বেশি ভাল মনে হয়।

আমরা জানি যে রকেট যার পূর্ব নাম ছিল ডাচ বাংলা ব্যাংক (এখনও বহাল আছে) এটি বিকাশের আগেই মার্কেটে চলে আসে। 

কিন্তু বিকাশ পরে আসার পরেও রকেটের চেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছে।

তাহলে?

বিকাশের নেগেটিভ দিকগুলো কি কি হতে পারে?

বিকাশ খুব জনপ্রিয় একথা সত্য। তবে বিকাশের ক্যাশ আউট চার্জ নগদের তুলনায় বেশি।

যেখানে বিকাশ প্রতি হাজার টাকা ক্যাশ আউটে চার্জ রাখে ১৮.৫০ টাকা সেখানে নগদ রাখে মাত্র ১৪.৫০ টাকা।

অ্যাপের মাধ্যমে ক্যাশ আউট করলে বিকাশের চার্জ আসে হাজারে ১৫.৫০ টাকা যেখানে নগদে আসে মাত্র ১১.৪৯ টাকা।

 

 

ক্যাশ আউট লিমিট

বিকাশ ক্যাশ আউট ও সেন্ড মানি খরচ কত?

বিকাশ ক্যাশ আউট কিভাবে করে? একজন বিকাশ গ্রাহক তার একাউন্ট থেকে দিনে সর্বোচ্চ ৫ বার ক্যাশ আউট করতে পারেন (এজেন্ট থেকে)।

প্রতি মাসে সবোর্চ্চ ২০ বার।

বিকাশ ক্যাশ আউট চার্জ এবং প্রতি লেনদেনে সর্বনিম্ন ৫০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২৫,০০০ টাকা ক্যাশ ইন করা সম্ভব।

এক দিনে সর্বোচ্চ ২৫,০০০ হাজার টাকা এবং এক মাসে সর্বোচ্চ ২,০০০০০ লক্ষ টাকা ক্যাশ আউট করা যায়।

 

ই-পাসপোর্ট কি? ই-পাসপোর্ট আবেদন করার নিয়ম খরচসহ

 

বিকাশ অ্যাপ দিয়ে কাশ আউট চার্জ

প্রথম অবস্থায় যখন অ্যাপ আসলো তখন প্রতি হাজারে ক্যাশ আউট চার্জ কাটত ১.৭৫% অনুযায়ী। কিন্তু বর্তমানে এই সেবাটি তুলে দেয়া হয়েছে।

এখন ইউএসডি সিস্টেম এ যে পরিমাণ চার্জ প্রতি হাজারে কাটে ঠিক একই পরিমাণ অর্থ কাটবে অ্যাপ এর মাধ্যমে ক্যাশ আউট এর সময়।

তাহলে কম চার্জে কিভাবে ক্যাশ আউট করা যাবে? Bkash cash out charge 2022

জ্বি,

এটা সম্ভব। আপনি প্রিয় এজেন্ট সেট করে প্রতি হাজারে অনেক কম পরিমাণ চার্জে ক্যাশ আউট করতে পারেন।

এক্ষেত্রে যে এজেন্ট সেট করবেন তাকে পরবর্তী মাসের আগ পর্যন্ত পরিবর্তন করতে পারবেন না।

ক্যাশ আউট চার্জ প্রতি হাজারে ১.৪৯% অর্থাৎ ১৪ টাকা ৯০ পয়সা।

 

 

সেন্ড মানি লিমিট

প্রিয় নাম্বারে সেন্ড মানি ফ্রি, একজন বিকাশ গ্রাহক তার নিজের বিকাশ একাউন্ট থেকে দিনে সর্বোচ্চ ৫0 বার সেন্ড মানি করতে পারেন। প্রতি মাসে সবোর্চ্চ ১০০ বার।

বিকাশ সেন্ড মানি করার নিয়ম এবং প্রতি লেনদেনে সর্বনিম্ন ১০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২৫,০০০ টাকা ক্যাশ সেন্ড মানি করা সম্ভব।

এক দিনে সর্বোচ্চ ২৫,০০০ হাজার টাকা এবং এক মাসে সর্বোচ্চ ২,০০০০০ লক্ষ টাকা ক্যাশ সেন্ড মানি করা যায়।

 

মোবাইল রিচার্জ লিমিট

বিকাশ ক্যাশ মোবাইল রিচার্জ। প্রতি ১ দিনে একজন বিকাশ গ্রাহক সর্বোচ্চ ৫0 বার মোবাইল রিচার্জ করতে পারেন এবং প্রতি মাসে সর্বোচ্চ ১৫০০ বার।

বিকাশ থেকে মোবাইল রিচার্জ অফার ২০২১, এবং প্রতি রিচার্জে সর্বনিম্ন ১০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ১,০০০ টাকা ক্যাশ রিচার্জ করা সম্ভব।

এক দিনে সর্বোচ্চ ১০,০০০ হাজার টাকা এবং এক মাসে সর্বোচ্চ ২,০০০০০ লক্ষ টাকা ক্যাশ রিচার্জ করা যায়।

 

কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাবেন। আর সেই সাথে আগামীতে নগদ এবং রকেট এ ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট এবং সেন্ড মানি চার্জ নিয়ে আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ্।

সে পর্যন্ত ভাল থাকেন।

 

2 thoughts on “বিকাশ ক্যাশ ইন আউট এবং সেন্ড মানি চার্জ প্রতি হাজারে”

  1. ভাস্কর

    ক্যাশ ইন এবং সেন্ড মানি নিয়ে confused। কাউকে আমি ২০০০টাকা বিকাশ করবো তো আমি যদি তার নাম্বার এ ২০৪০ টাকা ক্যাশ ইন করি তাহলে তাকি ২০৪০ টাকা সেন্ড মানি এর মতো চাহিদা পূরণ করবে না?

    1. ধন্যবাদ ভাই প্রশ্ন করার জন্য। বিষয়টি একটু স্পষ্ট করে বলবেন কি? আপনার প্রশ্নটা কি এমন ছিল যে আপনি 2040 টাকা পাঠাবেন। তাহলে তাকে আর অতিরিক্ত টাকা দিতে হবে কি না, টাকাটা নেবার জন্য? যদি এমন হয় তবে বিকাশে পার্সোনাল নাম্বারে ক্যাশ ইন করলে আউট চার্জ 18.50 টাকা প্রতি হাজারে। অতিরিক্ত টাকা যে 40 দিছেন সে কারণে তাকে আর টাকা দিতে হবে না। যদি এমন না হয় তবে জানাবেন প্লিজ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *